AlokitoBangla
  • ঢাকা শুক্রবার, ১৮ জুন, ২০২১, ৪ আষাঢ় ১৪২৮

স্ত্রী হত্যার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতা কারাগারে


FavIcon
জামালপুর,প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: জুন ৪, ২০২১, ০৮:৩০ পিএম
স্ত্রী হত্যার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতা কারাগারে
স্ত্রী হত্যার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতা কারাগারে

জামালপুরের মেলান্দহে স্ত্রী তানিয়াকে (৩২) হত্যার অভিযোগে স্বামী আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহেরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। নিহতের বাবা বাদী হয়ে মামলা করলে, এর ভিত্তিতে পুলিশ স্বামী আবু তাহেরকে গ্রেফতার করে এবং বৃহস্পতিবার (৩ জুন) সকাল ১০টার দিকে তাকে কোর্টে চালান করে দেয়। সেখান থেকে অভিযুক্ত স্বামীকে কারাগারে পাঠানো হয়।এদিকে ময়নাতদন্তের পর স্বজনদের কাছে তানিয়ার লাশ হস্তান্তর করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে গ্রামের বাড়ি নয়ানগর গ্রামে তার লাশ দাফন করা হয়েছে।জানা যায়, গত বুধবার বেলা ১১টার দিকে পারিবারিক কলহের জের ধরে কাজাইকাটা গ্রামের নূরুল ইসলামের ছেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবু তাহের তার স্ত্রী তানিয়াকে পিটিয়ে হত্যা করে। এরপর গোপনে স্ত্রীকে দাফনের জন্য কবরও খোঁড়ে। কিন্তু বিকেল ৩টার দিকে লাশের গোসলের সময় এলাকাবাসীর মাঝে গুঞ্জনের শুরু হলে তাৎক্ষণিকভাবে স্বজনদের কাছে তানিয়ার মৃত্যুর খবর জানাজানি হয়। মেয়ের মৃত্যুর খবর পেয়ে নিহতের বাবা হাছেন আলী মেয়ের বাড়িতে গেলে তাকে আটকে রাখে আবু তাহেরের। এ সময় প্রতিবেশীদেরও বাড়িতে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। খবর পেয়ে পুলিশ এসে স্বামী আবু তাহেরকে আটক করে।এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা জানিয়েছেন, তিনদিন যাবৎ তানিয়াকে অব্যাহত মারপিট করেছে আবু তাহের। ঘটনার দিন তানিয়া আত্মরক্ষার জন্য একটি ঘরে আশ্রয় নেয়। কিন্তু শাবল দিয়ে সেই ঘরের দরজা ভেঙ্গে প্রবেশ ফেলে তাহের। গলায় কাপড় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তানিয়াকে। পরে আত্মহত্যার নাটক সাজাতে ঘরেই ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখে তানিয়ার লাশ। এমনকি তার মুখে বিষও ঢেলে দেওয়া হয়। উৎসুক জনতা মৃত্যুর খবর জানতে পারলে কখনো আত্মহত্যা, কখনো বিষপান, কখনো স্ট্রোকে কথা বললে সন্দেহের সৃষ্টি হয়।তানিয়ার খালা শামসুন্নাহার জানান, তিনবছর আগে ব্যবসার জন্য আমার কাছ থেকে তিন লাখ টাকা ধার নেয় তাহের। এই টাকার কারণে বিরোধের জের ধরে তানিয়াকে প্রায়ই নির্যাতন করতো সে।তিনি আরও জানান, ১০/১২ বছর আগে মেলান্দহ পৌরসভার নয়ানগর গ্রামের হাছেন আলীর মেয়ে তানিয়াকে প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে বিয়ে করে। কিন্তু আবু তাহেরের পিতা-মাতা এই বিয়ে মেনে নিচ্ছিল না। তারা মেলান্দহ সদরে ভাড়া বাসায় থাকতো। গত ঈদের দুইদিন পর সপরিবারে বাড়িতে চলে যায় আবু তাহের। তাদের ঘরে দুই সন্তান আছে। এই ঘটনার পর থেকেই আবু তাহেরের দুই সন্তান নিয়ে তার মা-বাবা আত্মগোপনে রয়েছে।স্থানীয় থানার অফিসার ইনচার্জ মায়নুল ইসলাম জানান, নিহতের বাবা হাছেন আলী বাদী হয়ে নিহতের স্বামী আবু তাহেরসহ আরও চারজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। লাশের গায়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

 

Side banner