AlokitoBangla
  • ঢাকা রবিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২১, ৯ কার্তিক ১৪২৮

যশোরে বেনাপোলে ১০ দিনে ১৩ হাজার যাত্রীর যাতায়াত


FavIcon
মোঃ নজরুল ইসলাম,(নিজস্ব প্রতিবেদক)যশোর:
প্রকাশিত: অক্টোবর ১৩, ২০২১, ০৯:৫৫ পিএম
যশোরে বেনাপোলে ১০ দিনে ১৩ হাজার যাত্রীর যাতায়াত
যশোরে বেনাপোলে ১০ দিনে ১৩ হাজার যাত্রীর যাতায়াত

যশোরে বৃহত্তম স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়ে যাত্রী যাতায়াতকারীদের সংখ্যা বেড়েছে।চলতি অক্টোবর মাসের প্রথম দশ দিনে এ স্থলবন্দর দিয়ে যাতায়াত করেছেন ১৩ হাজার তিনশ’ ৮২ জন। যাদের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে ভারতে গেছেন সাত হাজার তিনশ’ আটজন। ভারত থেকে এসেছেন ছয় হাজার ৭৪ জন। বন্দর সূত্র জানায়, করোনার কারণে বেনাপোল স্থলবন্দরে কয়েক দফা বন্ধ করে দেওয়া হয় যাত্রী চলাচল। ফলে বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট এলাকায় জনসমাগম না থাকায় নিস্তেজ হয়ে পড়ে। সম্প্রতি যাত্রী চলাচল বেড়ে যাওয়ায় আবার সরব হয়ে উঠেছে বন্দর।বেনাপোল ইমিগ্রেশন সূত্র জানায়, সম্প্রতি মেডিকেল ও বাংলাদেশে ভারতের বিভিন্ন প্রকল্পে চাকরিরত যাত্রী চলাচলের অনুমতি মেলার পরও যাত্রী চলাচল ছিল প্রতিদিন ২০০ থেকে ৩০০ জন। কারণ যাত্রীদের ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশি হাইকমিশন থেকে অনুমতিপত্র লাগতো। এছাড়া যাত্রীদের নিচ খরচে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হতো। তবে কোয়ারেন্টাইন ও ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশি হাইকমিশন থেকে অনুমতি নেওয়ার বিষয়টি তুলে নেওয়ায় যাত্রী সংখ্যা বাড়ছে।সূত্র জানায়, গত ১ অক্টোবর ১৩৫৭ জন, ২ অক্টোবর ১২৬৭ জন, ৩ অক্টোবর ১১৬৫ জন, ৪ অক্টোবর ১২৯৯ জন, ৫ অক্টোবর ১৩৩৫ জন, ৬ অক্টোবর ১২৮৬ জন, ৭ অক্টোবর ১৩৩২ জন, ৮ অক্টোবর ১৭১০, ৯ অক্টোবর ১২৮০ ও ১০ অক্টোবর ১৩৫১ জন পাসপোর্টযাত্রী বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট দিয়ে যাতায়াত করেছেন।ঢাকা থেকে শাহানুর রহমান, খুলনা থেকে জাহাঙ্গীর হোসেন, বাগেরহাট থেকে আসা স্বপ্না সাহা এ প্রতিবেদককে বলেন, এ পথে তারা আগেও যাতায়াত করেছেন। আগে চেকপোস্ট এলাকায় প্রবেশমুখে বহিরাগত কিছু লোক উৎপাত করত। সম্প্রতি এ উৎপাত চোখে পড়ছে না।বেনাপোল ইমিগ্রেশন ওসি মোহাম্মাদ রাজু বলেন, যাত্রীসেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। কেউ যাতে এখানে হয়রানির শিকার না হন সেজন্য সব অফিসারকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যদি কোনো বহিরাগত দালালের উৎপাতের অভিযোগ পাওয়া যায় তাকে আইনের কাছে সোপর্দ করা হবে।তিনি আরো বলেন, আমি যোগদানের পর জেনেছি এ পথে ১০ হাজারের ওপরে যাত্রী চলাচল করেছে। ট্যুরিস্ট ভিসা ছাড়লে আশা করছি এ সংখ্যা আরো বাড়বে। ফলে সরকারেরও রাজস্বও বেড়ে যাবে।

Side banner