AlokitoBangla
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

গ্রামবাসী ত্রাণ চায় না, পানিবন্দি থেকে মুক্তি পেতে চায়


FavIcon
মোঃ বিল্লাল হোসেন,কেশবপুর(যশোর) প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: অক্টোবর ২১, ২০২১, ০৪:৪৮ পিএম
গ্রামবাসী ত্রাণ চায় না, পানিবন্দি থেকে মুক্তি পেতে চায়
গ্রামবাসী ত্রাণ চায় না, পানিবন্দি থেকে মুক্তি পেতে চায়

যশোরের কেশবপুরের গত ৫ দিনের অবিরাম বর্ষনে অধিকাংশ গ্রাম পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে বাড়িঘরে পানি উঠায় গ্রামের মানুষ চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। পানির ভেতর দিয়ে যাতায়াত করায় এলাকার মানুষের হাত ও পায়ে চুলকানি শুরু হয়েছে। এলাকার মানুষ পানিবাহিত নানা রোগব্যাধিতে আক্রান্ত ও ডেংগুর প্রভাব বৃদ্ধির আশঙ্কা করছেন।সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বাগডাঙ্গা, মনোহরনগন, পাথরঘাটা, বেলকাটি, গড়ভাঙ্গা, ডোঙ্গাঘাটা, সাগরদত্তকাটি, বেতিখোলা, নারায়নপুর ,কাকবাধাল, বেতিখোলা, কাটাখালি, কালিচরণপুর গ্রামের অধিকাংশ মানুষের বাড়ির উঠানে পানি থই থই করছে। অনেকেই যাতায়াতের জন্য উঠানে তৈরি করেছেন বাঁশের সাঁকো। আবার কেউ কেউ দূর থেকে মাটি এনে ও ইট দিয়ে উঠানসহ যাতায়াতের রাস্তা উঁচু করার চেষ্টা করছেন। গ্রামের মাট-ঘাট পেরিয়ে বাড়িতে পানি উঠে আসায় গবাদি পশু নিয়েও বিপাকে পড়েছে গ্রামবাসী। গোখাদ্যের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে । সাংসারিক কাজকর্ম থেকে শুরু করে পয়নিষ্কাশনে ব্যাপক সমস্যা দেখা দিয়েছে। বেতিখোলা গ্রামের রফিকুল ইসলাম বান্টু বলেন, ঘর থেকে পাকা রাস্তায় উঠতে বাঁশের সাঁকো তৈরি করা হয়েছে। ঘর একটু উচু যায়গায় হওয়ায় ঘর থেকে রান্না ঘর, বাতরুমসহ সকল কাজে কলার ভেলা ও সাঁকো তৈরি করে অন্যত্র যাতায়াত করতে হচ্ছে।  ছেলেমেয়েরা স্কুলে যেতে পরছে না। বাগডাঙ্গা গ্রামের তপতি সরকার বলেন, বসত বাড়িতে আজ দেড় বছর যাবত পানিবন্ধি অবস্থায় আছি ,এ অবস্থায় কি জীবন যাপন করা যায়।রান্না ঘরের চলার ভেতর জল উঠে গেছে দু মুঠো চাউল দিয়ে ভাত রান্না করে খাবো তেমন শুকনো যায়গা কোথাও নাই। বাগডাঙ্গা গ্রামের শ্যামলী হালদার বলেন,বুধবার বিকালে মেয়ের বাড়ী নেহালপুর সেখানে গরু ছাগল রেখে এসেছি। মেয়ের বাড়ি থেকে ফিরে  এসে রাতে রান্না করে খাওয়ার কোন উপায় ছিলো না। চুলার মধ্যে জল উঠে যাওয়ায় বাড়িতে রাখা শুকনো খাবার খেয়ে আছি।রান্নার করার মতো শুকনো যায়গা বাড়ির মধ্যে কোথায়ও নাই। মনোহননগর গ্রামের মহসীন হোসেন জানান, আমরা গ্রামবাসী ত্রাণ চায় না, পানিবন্দি থেকে মুক্তি পেতে চায়। বাগডাঙ্গা গ্রামের স্বপন রায় বলেন, প্রায় ১৫ দিন ধরে বাড়ির উঠানে হাটু পানি ,রান্না ঘরের চুলার ভেতরেও  পানি উঠে গেছে, আলাদা চুলা তৈরি করে রান্না করতে হচ্ছে। রুমিছা বেগম বলেন, বাড়িঘরে পানি উঠার পর গোয়াল থেকে গরু বের করা যাচ্ছে না। গোখাদ্য ফুরিয়ে আসায় বাধ্য হয়ে কম দামে  গরু বিক্রি করে দিতে হচ্ছে। বাথরুমও তলিয়ে গেছে। সমাধান সংস্থান স্বাস্থ্য পরিদর্শক জয়ন্তি রানী সরকার বলেন, বাগডাঙ্গাÑমনোহরনগর গ্রামে ৩শ ৭৭টি পরিবার রয়েছে তার মধ্যে প্রায় ৩শ পরিবার পানিবন্ধি । ইউপি সদস্য বৈদ্যনাথ সরকার বলেন, পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

 

 

Side banner

সারাদেশ বিভাগের আরো খবর

Small Banner