AlokitoBangla
  • ঢাকা শনিবার, ২৮ মে, ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

সিরাজগঞ্জে জুডিশিয়াল কর্মচারীদের শাস্তির দাবীতে আইনজীবীদের মিছিল- সমাবেশ,স্বারকলিপি প্রদান


FavIcon
জহুরুল ইসলাম,(নিজস্ব প্রতিবেদক) সিরাজগঞ্জ:
প্রকাশিত: জানুয়ারি ২০, ২০২২, ০৮:১৩ পিএম
সিরাজগঞ্জে জুডিশিয়াল কর্মচারীদের শাস্তির দাবীতে আইনজীবীদের মিছিল- সমাবেশ,স্বারকলিপি প্রদান
সিরাজগঞ্জে জুডিশিয়াল কর্মচারীদের শাস্তির দাবীতে আইনজীবীদের মিছিল- সমাবেশ,স্বারকলিপি প্রদান

সিরাজগঞ্জে আইনজীবী এবং আদালত কর্মচারীদের মধ্যে সৃষ্ট সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারন করেছে। এ সমস্যা সমাধানে ব্যর্থতার অভিযোগ এনে জেলা জজ ও চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটের অপসারন এবং অভিযুক্ত কর্মচারীদের শাস্তির দাবীতে মিছিল-সমাবেশ করেছেন আইনজীবীরা। বৃহস্পতিবার সকালে আদালত প্রাঙ্গনে ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি পালিত হয়। এরপর একই দাবীতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর স্বারকলিপি প্রদান শেষে আইনজীবী সমিতিতে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে আইনজীবী সমিতির সাধারন সম্পাদক এ্যাড: আব্দুর রউফ পান্না বলেন, আইনজীবী ও স্টোনোগ্রাফারের মধ্যে সৃষ্ট সমস্যা সমাধান কল্পে জেলা জজ ও চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটকে লিখিত ভাবে অবগত করা হয়েছে। কিন্ত ঘটনার ৮দিন অতিবাহিত হলেও বিষয়টি সমাধান কল্পে তারা কোন উদ্যোগ গ্রহন করেননি। উল্টো অভিযুক্ত স্টোনোগ্রাফার ইউসুফ আলী পলাতক থেকেও আইনজীবীদের বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। আর তার পক্ষ অবলম্বন করে আদালতের কর্মচারীরা এজলাস ও অফিস কক্ষ বন্ধ রেখে আপত্তিকর ব্যানার হাতে আইনজীবীদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে  মিছিল-সমাবেশ করেছেন। এটা শিষ্টাচার বর্হিভূত ও চরম অনৈতিক। কিন্তু জেলা ও দায়রা জজ এবং চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ব্যর্থ হয়েছেন এবং পক্ষপাত দুষ্ট আচরন করেছেন।এ কারনে জেলা ও দায়রা জজ এবং চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেটকে অন্যত্র বদলী, আইনজীবীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, স্টোনোগ্রাফার ইউসুফ আলীকে গ্রেপ্তার ও দূর্নীতিবাজ কর্মচারীদের অপসারন দাবী করেন তিনি।অন্যস্থায় আদালত বর্জন অব্যাহত থাকবে, মামলা সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র আইনজীবীরা আদালতে দাখিল করবে না এবং আইনজীবী সহকারীরাও আদালতে যাওয়া থেকে বিরত থাকবে বলে ঘোষনা দেয়া হয়।  সংবাদ সন্মেলনে আইনজীবী সমিতির সভাপতি মীর রুহুল আমিন বাবুসহ অন্যান্য আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার আদালত পাড়ায় জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের স্টেনোগ্রাফার ইউসুফ আলী এবং আইনজীবি আবুল কালামের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনার সূত্রপাত হয়। গত রোববার জেলা জজ ও মাজিষ্ট্রেট আদালতের কর্মচারীরা আপত্তিকর ব্যানার নিয়ে আইনজীবিদের শাস্তির দাবীতে আদালত প্রাঙ্গনে সভা-সমাবেশ করেন। এরপর অফিস ও এজলাস বন্ধ রেখে আপত্তিকর ব্যানার নিয়ে আন্দোলন করার অভিযোগ এনে জড়িতদের শাস্তির দাবীতে আদালত বর্জন শুরু করেন আইনজীবিরা। এ অবস্থায় মারপিটের অভিযোগ এনে থানায় আইনজীবী ও স্টোনোগ্রাফারের পক্ষ থেকে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।গত ৫দিন যাবত এ অবস্থা চলার কারনে আদালতগুলো খোলা থাকলেও আইনজীবিরা না যাওয়ায় আদালতের কার্যক্রমে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে বিচার প্রার্থীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। এ বিষয়ে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের নাজির মো. বেলাল হোসেন বলেন. সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য মিথ্যা ভিত্তিহীন। সকল অপরাধের মুল হোতা আইনজীবীরা।  তারা আমাদের উপর দোষ চাপিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। তিনি আরো বলেন- আদালতের সকল কার্যক্রম অব্যহত রয়েছে। আমরা জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের কর্মচারীরা দোষি ব্যক্তিদের শাস্তির দাবী করছি।

 

Side banner

সারাদেশ বিভাগের আরো খবর

Small Banner