AlokitoBangla
  • ঢাকা রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

রাজধানীতে বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ উদ্ধার : গ্রেফতার ৭


FavIcon
আলোকিত বাংলা,প্রতিবেদক:
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২১, ০৭:৫২ পিএম
রাজধানীতে বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ উদ্ধার : গ্রেফতার ৭
রাজধানীতে বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ উদ্ধার : গ্রেফতার ৭

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ক্যান্সার ও করোনা মহামারিতে ব্যবহৃত দেশী ও বিদেশী বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নকল ওষুধ এবং ওষুধ তৈরির সরঞ্জামসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে- তরিকুল ইসলাম, সৈয়দ আল মামুন, সাইদুল ইসলাম, মনোয়ার, আবদুল লতিফ, নাজমুল ঢালী ও সাগর আহমেদ মিলন।এ সময় তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশী ও বিদেশী বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নকল ওষুধ, ওষুধ তৈরির মেশিন, ডায়াস ও ওষুধের খালি বক্স উদ্ধার করা হয়। বুধবার রাজধানীর কাজলা, আরামবাগ ও মিটফোর্ড এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।শুক্রবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার। তিনি বলেন, একটি অসাধু চক্র নকল ওষুধ বাজারজাত করছে। এ চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু করে গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগ। গত ১ সেপ্টেম্বর বুধবার ধারাবাহিক অভিযানে চালিয়ে এ প্রতারক চক্রের ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়।ডিবি প্রধান বলেন, গ্রেফতারকৃত তরিকুল ইসলাম ও সৈয়দ আল মামুন কারখানা স্থাপন করে জীবন রক্ষাকারী এ সকল নকল ওষুধ তৈরি করে। সাইদুল ইসলাম এ নকল ওষুধ তৈরির প্রধান কারিগর, মনোয়ার এ্যালো এ্যালো ফয়েল ও আবদুল লতিফ ওষুধের পাতায় ছাপ দেয়ার গুরুত্বপূর্ণ উপাদানসহ সিলিন্ডার সরবরাহ করতো। গ্রেফতারকৃত নাজমুল ঢালী ওষুধের বক্সে ছাপ দেয়ার পর তৈরিকৃত এ সকল নকল ওষুধ গ্রেফতারকৃত সাগর আহমেদ মিলনের নেতৃত্বে মিটফোর্ডের কয়েকটি গ্রুপের মাধ্যমে বাজারজাত করতো।তিনি আরো বলেন, এই নকল ওষুধের উপাদানে মূলত প্রয়োজনীয় কোন সক্রিয় উপাদান থাকে না। এছাড়া মেইন স্টার্চ নিম্ন গ্রেডের ব্যবহৃত হয়। এমনকি স্টেরয়েড ও ডাই ব্যবহৃত হতে পারে। নন ফার্মাসিউটিক্যালস গ্রেডের এসব কেমিক্যাল সেবনের ফলে মানুষের কিডনি, লিভার ও হৃদযন্ত্রের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এ সকল নকল ওষুধ সাধারণ মানুষের জন্য মরণ ফাঁদ।গ্রেফতারকৃতদেরকে বংশাল থানায় দায়ের করা মামলায় আদালতে প্রেরণ করার পর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে।

 

Side banner