AlokitoBangla
  • ঢাকা রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ২৩ মাঘ ১৪২৯
banner

গণতন্ত্র উদ্ধার হলে বাংলাদেশ মুক্ত হবে: গয়েশ্বর


FavIcon
অনলাইন ডেস্ক:
প্রকাশিত: জানুয়ারি ৪, ২০২৩, ০৯:৪৮ পিএম
গণতন্ত্র উদ্ধার হলে বাংলাদেশ মুক্ত হবে: গয়েশ্বর
গণতন্ত্র উদ্ধার হলে বাংলাদেশ মুক্ত হবে: গয়েশ্বর

গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, আন্দোলনের মধ্যদিয়ে গণতন্ত্র উদ্ধার করতে পারলে, বাংলাদেশ মুক্ত হবে। আমাদের নেতাকর্মীরা মুক্ত হবে। আমরা ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত করতে পারবো। গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি’র চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ও মির্জা আব্বাসসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনটি আয়োজন করে ঢাকাস্থ ঠাকুরগাঁও জাতীয়তাবাদী ফোরাম। গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, দেশের ১৮ কোটি মানুষ গণতন্ত্র চান। জনগণ তাদের ভোট নিরাপদে দিতে চায়। আন্দোলনের মধ্যদিয়ে গণতন্ত্র উদ্ধার করতে পারলে, বাংলাদেশ মুক্ত হবে। মানুষ ভোট দিতে পারবে। আজকে আদালত, সরকারসহ রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান সব কিছু একজনের কথায় চলে।

আমাদের আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। আমাদের সংগ্রাম করতে হবে। ফ্যাসিবাদ সরকার কখনো নিরস্ত্র জনগণের সঙ্গে সংগ্রাম করে টিকতে পারবে না। আগেও পারেনি। শেখ হাসিনার পতন অনিবার্য। তিনি বলেন, আমরা আমাদের নেতাদের মুক্তি কার কাছে চাইবো। তিনি আমাদের দলের শীর্ষ নেতাদেরকে ধরেছেন, তিনি তো ছাড়বেন না। তিনি বলেন, ঢাকার সমাবেশ নিয়ে সরকার অমানবিক কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে। আমাদের নেতা ডা. জাহিদের কাছে সমাবেশ করার অনুমতিপত্র দিয়ে, বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসকে রাতের অন্ধকারে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। নানা নাটকীয়তার পরে জেলখানায় পাঠায়। বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির এ নেতা বলেন, আমার আদালতকে একটি কথাই বলতে চাই, আমরা ন্যায়বিচার চাই। যাদেরকে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, অন্যায়ভাবে আটক করা হয়েছে, তাদের নিয়ে আমরা আদালতের কাছে ন্যায়বিচার চাই। খালেদা জিয়া ন্যায়বিচার পায়নি উল্লেখ করে গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, আমাদের নেত্রী ন্যায়বিচার চেয়েছিল। তার উপর ন্যায়বিচার করা হয়নি। অবিচারের সম্মুখীন হয়েছিলেন। বাংলাদেশের ইতিহাসে খালেদা জিয়া ব্যতীত এমন কোনো নজির নেই যে, এ সংক্রান্ত মামলায় কেউ জামিন পায়নি। তিনি বলেন, আমরা কার কাছে বিচার চাইবো। বিচার বিভাগ যদি আলাদা হতো, বিচারপতিরা যদি বলতে পারতো যে তারা স্বাধীন। তাহলে আমরা ন্যায়বিচার পেতাম। আমরা আর আমাদের নেতাদের মুক্তি চাইবো না, এখন তাদেরকে মুক্ত করবো। আমরা গণতন্ত্র, গণতন্ত্রের মা বেগম খালেদা জিয়া, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাসসহ সকল নেতাকর্মীকে মুক্ত করবো। গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, আমরা চাই অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ একটা নির্বাচন। সেই নির্বাচনের বাধা শেখ হাসিনা। তিনি যতক্ষণ ক্ষমতায় থাকবেন, ততক্ষণে পুলিশ, র‌্যাব, আদালত, প্রশাসন বাধা থাকবে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় না থাকলে, পুলিশ জনগণের পক্ষে কাজ করবে। পুলিশ আর কখনো জনগণের ওপর অত্যাচার করবে না। জনগণের খাদেম হিসেবে কাজ করবে। একারণে আমরা বলছি, আগামী সুষ্ঠু নির্বাচনের একমাত্র পথ হচ্ছে শেখ হাসিনার পদত্যাগ। সরকার পদত্যাগ করলেই খালেদা জিয়া, মির্জা ফখরুল, মির্জা আব্বাসসহ সকল কারাবন্দির মুক্তি মিলবে। সংগঠনের সভাপতি সোহেল রানার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ, পঞ্চগড় জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব ফরহাদ হোসেন আজাদ, শহিদুল ইসলাম বাবুল, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, আনিসুর রহমান তালুকদার খোকন, আমিরুজ্জামান খান শিমুল, ওমর ফারুক সাফিন, কামাল আনোয়ার আহম্মেদ প্রমুখ।

 

Banner
Side banner
Side banner